মজুরি কী? প্রকৃত মজুরি কী কী বিষয়ের নির্ভর করে

আচ্ছালামু আলাইকুম প্রিয় দর্শক - দৈনিক শিক্ষা ব্লগর পক্ষ থেকে আপনাকে স্বাগতম। আজকে আমি আপনাদের মাঝে মজুরি কী? প্রকৃত মজুরি কী কী বিষয়ের নির্ভর করে নিয়ে আলোচনা করব।

মজুরি কী? প্রকৃত মজুরি কী কী বিষয়ের নির্ভর করে। অথবা, মজুরি বলতে কী বুঝায়? প্রকৃত মজুরি নির্ধারক বিষয়সমূহের বর্ণনা দাও। অথবা, মজুরি বলতে কী বুঝ? প্রকৃত মজুরি কী কী বিষয়ের উপর নির্ভর করে তা আলোচনা কর।

মজুরি কী? প্রকৃত মজুরি কী কী বিষয়ের নির্ভর করে

মজুরি: সাধারণ অর্থে শ্রমিকের পারিশ্রমিককে মজুরি বলা হয়। অর্থাৎ উৎপাদন কাজে অংশগ্রহণের জন্য শ্রমিক যে পারিশ্রমিক পায়, তা-ই মজুরি। কিন্তু অর্থনীতিতে মজুরি শব্দটি বিশেষ অর্থে ব্যবহৃত হয়।

একজন শ্রমিক তার শারীরিক ও মানসিক শ্রমের বিনিময়ে যে পারিশ্রমিক লাভ করে তাকে অর্থনীতিতে মজুরি বলা হয়। যেমন- অধ্যাপক, ডাক্তার ও শ্রমিক নিজ নিজ পেশায় নিয়োজিত থেকে পারিশ্রমিক লাভ করেন। এরূপ পারিশ্রমিককেই মজুরি বলা হয়।

অধ্যাপক বেনহাম-এর মতে, "চুক্তির অধীনে কাজ করার জন্য নিয়োগকর্তা শ্রমিককে যে অর্থ প্রদান করে, তাকে মজুরি বলা হয়।" সাধারণভাবে মনে করা হয় যে, শুধু অন্যের অধীনে কাজ করে মজুরি পাওয়া যায়। কিন্তু বাস্তবে স্বাধীনভাবে কাজ করেও মজুরি লাভ করা যায়।

কোনো শ্রমিক নিজের জমিতে বা কারখানায় কাজ করে মজুরি লাভ করতে পারে। এরূপ ক্ষেত্রে শ্রমিক অন্যের জমিতে বা কারখানায় কাজ করলে যে আয় পেত তাই হবে তার মজুরি। সুতরাং শ্রমিক স্বাধীনভাবে বা অন্যের অধীনে কাজ করে মজুরি লাভ করতে পারে।

প্রকৃত মজুরি নির্ধারণের বিষয়সমূহঃ নিম্নে প্রকৃত মজুরি নির্ধারক বিষয়সমূহের বা যেসব বিষয়ের উপর প্রকৃত মজুরি নির্ভর করে সেগুলো ব্যাখ্যা করা হলোঃ 

  1. আর্থিক মজুরি: শ্রমিকের প্রকৃত মজুরি তার আর্থিক মজুরির উপর নির্ভর করে। "অন্যান্য সবকিছু অপরিবর্তিত থাকলে" শ্রমিকের আর্থিক মজুরি বৃদ্ধি পেলে প্রকৃত মজুরি বাড়ে। আবার আর্থিক মজুরি কম হলে প্রকৃত মজুরি কমে যায়। ধরা যাক, একজন শ্রমিকের মজুরি ১,২০০ টাকা হতে বৃদ্ধি পেয়ে ১,৫০০ টাকা হয়। এমতাবস্থায় বর্ধিত ৩০০ টাকায় তার পক্ষে পূর্বের তুলনায় বেশি পণ্যসমাগ্রী ক্রয় তথা ভোগ করা সম্ভব হয়। ফলে শ্রমিকের প্রকৃত মজুরি বৃদ্ধি পায়।
  2. অতিরিক্ত আয়ের সম্ভাবনাঃ কোনো পেশায় অতিরিক্ত আয়ের সম্ভাবনা থাকলে প্রকৃত মজুরি বেশি হয়। যেমন-একজন অধ্যাপক পেশাগত দায়িত্ব পালন করেও ছাত্র পড়িয়ে এবং গ্রন্থ রচনা করে অর্থ আয় করতে পারেন। কাজেই এ জাতীয় পেশায় প্রকৃত মজুরি বেশি হয়।
  3. ভবিষ্যৎ সম্ভাবনাঃ যেসব পেশায় ভবিষ্যৎ উন্নতির সম্ভাবনা আছে সেগুলোতে আর্থিক মজুরি কম হলেও প্রকৃত মজুরি বেশি হয়। যেমন- অর্থনীতিতে এম.এ পাস একজন লোক ব্যাংকে কেরানি হিসেবে যোগদান করলেও ভবিষ্যতে তার পদোন্নতির যথেষ্ট সম্ভাবনা থাকে। তাই এ জাতীয় কাজে প্রাথমিক অবস্থায় আর্থিক মজুরি কম হলেও প্রকৃত মজুরি বেশি হয়।
  4. অন্যান্য সুযোগ সুবিধাঃ কোনো পেশায় আর্থিক মজুরি ছাড়া যদি অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা পাওয়া যায় তবে সেক্ষেত্রে প্রকৃত মজুরি বেশি হয়। যেমন- একজন জেলা প্রশাসক আর্থিক মজুরি ছাড়াও বাসস্থান, মোটরগাড়ি, টেলিফোন ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা লাভ করে।
  5. সামাজিক মর্যাদা: রুচিতসম্মত ও সামাজিক মর্যাদাসম্পন্ন কাজে আর্থিক মজুরি কম হলেও প্রকৃত মর্যাদা একজন মেথরের চেয়ে বেশি।
উপরিউক্ত আলোচনার থেকে এটা সুস্পষ্ট যে, প্রকৃত মজুরি অনেকগুলো বিষয়ের উপর নির্ভর করে। তবে এসব বিষয়ের মধ্যে মজুরি সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ, কারণ আর্থিক মজুরি কম-বেশি হলে প্রকৃত মজুরি সেই হিসেবে হ্রাস-বৃদ্ধি ঘটে।

আপনার আসলেই দৈনিক শিক্ষা ব্লগর একজন মূল্যবান পাঠক। মজুরি কী? প্রকৃত মজুরি কী কী বিষয়ের নির্ভর করে এর আর্টিকেলটি সম্পন্ন পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ ধন্যবাদ। এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনার কেমন লেগেছে তা অবশ্যই আমাদের কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url