ন্যূনতম রাষ্ট্রের তত্ত্বটি ব্যাখ্যা করো

আচ্ছালামু আলাইকুম প্রিয় দর্শক - দৈনিক শিক্ষা ব্লগর পক্ষ থেকে আপনাকে স্বাগতম। আজকে আমি আপনাদের মাঝে ন্যূনতম রাষ্ট্রের তত্ত্বটি ব্যাখ্যা করো নিয়ে আলোচনা করব।

ন্যূনতম রাষ্ট্রের তত্ত্বটি ব্যাখ্যা করো

ন্যূনতম রাষ্ট্রের তত্ত্ব

রবার্ট নজিকের মতে ন্যূনতম রাষ্ট্রের ধারণা

রবার্ট নজিক এমন এক ব্যক্তিস্বাতন্ত্র্যবাদী তত্ত্বের ধারণা দিয়েছেন যেখানে ব্যক্তি পুরোপুরিভাবে সংহতি ও সহমর্মিতার ধারণা থেকে মুক্ত। তিনি ব্যক্তির অধিকারকে চূড়ান্ত বা চরম বলে অভিহিত করেন। তাঁর মতে, ব্যক্তির বাক ও মতামত প্রকাশের স্বাধীনতা যেমন আছে, তেমনই তার নিজস্ব জীবনধারা বেছে নেওয়ার স্বাধীনতাও বিদ্যমান।

নজিক যে ব্যক্তিগত সম্পত্তির স্বত্বাধিকার তত্ত্ব (Entitlement Theory of Private Property) ব্যাখ্যা করেছেন যেখানে ঐতিহাসিক প্রক্রিয়ার নীতিকে অনুসরণ করা হয়েছে। এক্ষেত্রে ন্যায়নীতি সমন্বিত বিষয়টিকেও অনুসরণ করা হয়েছে।

ন্যূনতম রাষ্ট্রের আদর্শ

রবার্ট নজিক মনে করেন যে, সম্পত্তি বা ভোগ্যপণ্য বণ্টনের ব্যাপারে কোন্ নীতি অনুসরণ করা হচ্ছে অথবা কীভাবে সেই নীতি অনুসরণ করা হচ্ছে সে-ব্যাপারে পুরুত্ব না দিয়ে তার পরিবর্তে কীভাবে সম্পত্তি অর্জন করা হচ্ছে সে-বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়া উচিত।

তাঁর মতে, সামাজিক ন্যায়কে যদি চূড়ান্ত লক্ষ্য হিসেবে ধরে নিয়ে কোনো কিছু বণ্টন করা যায় তাহলে সেক্ষেত্রে রাষ্ট্রীয় হস্তক্ষেপ অনিবার্য হয়ে পড়ে। কিন্তু রাষ্ট্রীয় হস্তক্ষেপ কোনোভাবেই কাম্য বা গ্রহণযোগ্য নয়। রাষ্ট্রের হস্তক্ষেপকে এড়িয়ে যাওয়ার জন্যই নজিক সৃষ্টি করেন ন্যূনতম রাষ্ট্র (minimal state)-এর আদর্শ।

অধিকার সম্পর্কে ধারণা

লকের উদারনীতিক মতবাদের দ্বারা রবাট নজিক প্রভাবিত হয়েছিলেন। বিংশ শতাব্দীর শেষ পর্বে পশ্চিমি ভাবধারার ওপর তিনি লকের অধিকার তত্ত্বকে নতুনভাবে প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলেন। তিনি বলেন, কোনো কিছুর দ্বারা বাক্তির অধিকারকে সীমাবদ্ধ করা সম্ভব নয়। তবে ব্যক্তিমানুষের মধ্যে স্বাধীনতা ও সাম্যের বিষয়টি যাতে বজায় থাকে সেদিকে লক্ষ রাখা উচিত।

অধিকারের কথা বলতে গিয়ে নজিক দুটি বিষয়কে বর্জন করেছেন-প্রথমটি হল গোষ্ঠীজীবন থেকে বাক্তির অধিকারের উদ্ভব এবং দ্বিতীয়টি হল প্রকৃতির রাজ্যের জীবনধারার সমষ্টি থেকে বাস্তির অধিকারের উদ্ভব। এই কারণে নজিক 'সর্বজনীন ব্যক্তি অধিকার' বিষয়ক চিন্তাধারাটিকে মূল্যহীন বলে মনে করেন।

তাঁর দৃষ্টিতে ব্যক্তির প্রাকৃতিক অধিকার বলে কখনও কিছু ছিল না। এই কারণে তিনি অধিকার বলতে বুঝিয়েছেন, কোনো বিশেষ ব্যক্তি যখন বিশেষ কোনো ভোগ্যবস্তুর প্রত্যাশা করে তখন সেটি হল তার অধিকার। প্রকৃতির রাজ্যের বর্ণনা দিতে গিয়ে লক ব্যক্তিকে যেসব অধিকার প্রদান করেছেন, 'ন্যূনতম রাষ্ট্র' সেইসব অধিকার সংরক্ষণকে স্বীকৃতিদানের কথা বলেছে।

রাষ্ট্রের পরিচালনার ব্যয়ভার

সাম্প্রতিক রাষ্ট্রব্যবস্থাগুলিতে ব্যক্তিকে তার আয়ের ওপর রাষ্ট্র কর্তৃক নির্ধারিত কর দিতে হয়। এইসব করকে রবার্ট নজিক বলেছেন বাধ্যতামূলক কর। তিনি মনে করেন, এর ফলে ব্যক্তিস্বাধীনতা কুঞ্জ হয়। তাই এই ব্যবস্থা ঠিক নয়। যদিও নজিক 'ন্যূনতম রাষ্ট্র' (minimal state) পরিচালনার জন্য যেসব ব্যয় হবে, সেই অর্থ কীভাবে বা কোথা থেকে আসবে সে-সম্পর্কে তিনি নীরব ছিলেন।

জনকল্যাণমূলক রাষ্ট্রের সমালোচনা

নজিক কল্যাণমূলক রাষ্ট্রের ঘোর বিরোধিতা করেছেন। এ ব্যাপারে তিনি রলসের কল্যাণমূলক রাষ্ট্র ব্যবস্থার বিরোধিতা করে বলেন যে, কোনো জনকল্যাণমূলক রাষ্ট্রের প্রশাসন যদি দুর্নীতিগ্রস্ত হয়ে পড়ে, অথবা সংশ্লিষ্ট দেশের প্রশাসন যদি অদক্ষ বলে প্রমাণিত হয় তাহলে সেই রাষ্ট্রের ওই ব্যবস্থার বিরোধিতা করা এক তাৎপর্যপূর্ণ বিষয় বলে গণ্য হবে। তাঁর কাছে এই পুনর্বণ্টনমূলক ন্যায়নীতির ধারণাটির কোনো মূল্য নেই। কারণ তিনি বিশ্বাস করেন 'ন্যূনতম রাষ্ট্র' ব্যক্তিকে দেবে সম্পত্তির নিরাপত্তা, সামাজিক শৃঙ্খলা এবং শান্তি।

মূল্যায়ন

নয়া-উদারনীতিবাদীরা রবার্ট নজিকের ন্যূনতম রাষ্ট্রের ধারণা দ্বারা আকর্ষিত হলেও এই ধারণা নয়া- উদারনৈতিক চিন্তাধারা থেকে আরও বেশি অগ্রবর্তী। কারণ তিনি যে 'ব্যক্তিস্বাধীনতা' ও 'ব্যক্তি-অধিকারের' বর্ণনা দিয়েছেন সেগুলিকে কোনো প্রতিষ্ঠান বা নৈতিক নীতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না।

কান্টের তত্ত্বকে রলস যেমন আরও উন্নত রূপ দেন, তেমনই রবার্ট নজিকের রচনাতেও লকের তত্ত্বের এক উন্নত রূপ পাওয়া যায়। কিন্তু কোনো কোনো ক্ষেত্রে তিনি তাঁর 'ন্যূনতম রাষ্ট্র'-এর ধারণা থেকে বিচ্যুত হয়েছেন। কারণ তিনি কোনো কোনো ক্ষেত্রে রাষ্ট্রের অতিরিক্ত ক্ষমতা প্রয়োগকে সমর্থন করেছেন।

তা ছাড়া তাঁর ন্যূনতম রাষ্ট্র এমন একটি কল্পরাষ্ট্র যেখানে ব্যক্তি স্বাধীনভাবে অর্থাৎ অবাধে যে-কোনো রাষ্ট্রনৈতিক কাজে অংশগ্রহণ করতে পারে। তিনি এমন একজন দার্শনিক যাঁর তত্ত্বের বাস্তব প্রয়োগ সম্পর্কে কোনোরূপ আগ্রহ ছিল না।

আপনার আসলেই দৈনিক শিক্ষা ব্লগর একজন মূল্যবান পাঠক। ন্যূনতম রাষ্ট্রের তত্ত্বটি ব্যাখ্যা করো এর আর্টিকেলটি সম্পন্ন পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ ধন্যবাদ। এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনার কেমন লেগেছে তা অবশ্যই আমাদের কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না।

Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url