আধুনিক রাষ্ট্রে রাজনৈতিক দলের ভূমিকা ও কার্যাবলি আলোচনা করো

আচ্ছালামু আলাইকুম প্রিয় দর্শক - দৈনিক শিক্ষা ব্লগর পক্ষ থেকে আপনাকে স্বাগতম। আজকে আমি আপনাদের মাঝে আধুনিক রাষ্ট্রে রাজনৈতিক দলের ভূমিকা ও কার্যাবলি আলোচনা করো নিয়ে আলোচনা করব।

প্রত্যেকটি রাজনৈতিক ব্যবস্থায়, অর্থাৎ উদারনৈতিক গণতান্ত্রিক, সমাজতান্ত্রিক, ধনতান্ত্রিক, কিংবা উন্নয়নশীল প্রতিটি দেশেই বর্তমানে রাজনৈতিক দল বিশেষভাবে অপরিহার্য। অধ্যাপক বাকার বলেছেন যে, সামাজিক চিন্তাধারা ও রাজনৈতিক কাজকর্মের মধ্যে রাজনৈতিক দল সংযোগরক্ষাকারী হিসেবে কাজ করে।

আধুনিক রাষ্ট্রে রাজনৈতিক দলের ভূমিকা/কার্যাবলি আলোচনা করো

আবার গ্যাকাইভার একটু অন্যভাবে বলেছেন যে, জনমতকে সরকারি নীতিতে রূপান্তরিত করার ক্ষেত্রে রাজনৈতিক দল একটি এজেন্সি হিসেবে কাজ করে। আধুনিক রাষ্ট্রে রাজনৈতিক দলের প্রধান ভূমিকাগুলি হল:-

রাজনৈতিক ক্ষমতাকে নিয়ন্ত্রণ

রাজনৈতিক দল রাজনৈতিক ক্ষমতা-লাভের জন্য সংগ্রাম পরিচালনা করে ও তাকে নিয়ন্ত্রণ করে। সমাজে উদ্ভুত বিভিন্ন সমস্যাকে রাজনৈতিক দলসমূহ নিজের নিজের মতাদর্শের ওপর ভিত্তি করে সেইসব সমস্যাসমাধানের জন্য এগিয়ে আসে। যেহেতু বিভিন্ন দল তার নিজ নিজ কর্মসূচি অনুযায়ী সামাজিক সমস্যাসমাধানের জন্য তৎপর হয়, সেহেতু জনগণও তার মতানুসারে কোনো একটি রাজনৈতিক দলকে সমর্থন করতে পারে।

জনমত গঠন

প্রতিটি রাজনৈতিক দল তাদের নিজ নিজ নীতি ও কর্মসূচি অনুসারে জনমত গঠনের জন্য সভাসমিতি গঠন করে এবং পত্রপত্রিকা, পুস্তক-পুস্তিকা প্রভৃতি প্রকাশ করে। এর ফলে সাধারণ মানুষ রাজনৈতিক দিক থেকে জ্ঞানসম্পন্ন হতে পারে এবং রাজনৈতিকভাবে সচেতন হয়ে উঠতে পারে। লাওয়েল তাই বলেছেন যে, রাজনৈতিক দলের প্রধান কাজ হল জনমত গঠন এবং জনমতের রায় গ্রহণ।

সরকার গঠন

সরকার গঠনের আশায় প্রতিটি রাজনৈতিক দল তার নিজ নিজ মতাদর্শের প্রচার চালায়। সরকারি ক্ষমতা লাভ করতে পারলে তারা তাদের নিজ দলের মতাদর্শকে বাস্তবায়িত করার সুযোগ পাবে। এই কারণে দলকে প্রতিশ্রুতিমতো কাজও করতে হয়।

সরকারি দলকে নিয়ন্ত্রণ

যে দল সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে সেই দল সরকার গঠন করার সুযোগ পায়। অন্যান্য দল বিরোধী দল হিসেবে পরিগণিত হয়। সরকারি ক্ষমতাসীন দল যাতে ক্ষমতার বলে বলীয়ান হয়ে জনকল্যাণের বিরোধী কাজ করতে না পারে তার জন্য বিরোধী দলগুলিকে সতর্ক থাকতে হয়। তা ছাড়া বিরোধী দলগুলি সরকারের ভুলত্রুটির সমালোচনা করে সরকারকে সংযত রাখে।

রাজনৈতিক সামাজিকীকরণ

প্রতিটি রাজনৈতিক দল তার নিজ নিজ মতাদর্শকে জনগণের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য নানা উপায় অবলম্বন করে কাজ করে। প্রতিটি রাজনৈতিক দল তার মতাদর্শ ও মূল্যবোধ দ্বারা জনগণকে প্রভাবিত করে। এর ফলে জনসাধারণের মধ্যে রাজনৈতিক বিষয় সম্পর্কে যে জ্ঞান লাভ হয় তাকে বলে রাজনৈতিক সামাজিকীকরণের কাজ।

সরকার ও জনগণের মধ্যে সংযোগরক্ষা

রাজনৈতিক দলগুলি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থায় সরকার ও জনগণের মধ্যে সংযোগরক্ষাকারী হিসেবে কাজ করে। রাজনৈতিক দলগুলি এক্ষেত্রে সরকারের কাজের পক্ষে-বিপক্ষে প্রচার চালায়। সরকারের ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল ও অন্যান্য বিরোধী দলগুলির পরস্পরবিরোধী প্রচারের ফলে জনসাধারণ সরকারি কাজ সম্পর্কে সম্যকভাবে অবহিত হতে পারে। তা ছাড়া জনসাধারণের বিভিন্ন অভাব-অভিযোগ সম্পর্কে সরকার অবহিত হলে তার প্রতিবিধানের জন্য সে বাবস্থা নিতে বাধ্য থাকে।

শাসনকার্যে যোগ্য ব্যক্তিকে সুযোগদান

কখনো-কখনো যোগ্য ব্যক্তিরা অভাবের কারণে নির্বাচনের খরচ চালিয়েও সরকারে আসতে পারে না। রাজনৈতিক দল ওইসব যোগ্য ব্যক্তিকে শাসনকার্যে আসার সমস্ত নির্বাচনি ব্যয়ভার করে শাসনকাজে আসার সুযোগ করে দিতে পারে।

স্বার্থের সমষ্টিকরণ

অ্যালমন্ড ও পাওয়েল বলেছেন যে, রাজনৈতিক দলের একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কাজ হল স্বার্থের সমষ্টিকরণ। বিভিন্ন স্বার্থগোষ্ঠী রাজনৈতিক দল উদারনৈতিক গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় যেসব দাবি জানায়, সেইসব দাবিকে যখন একটি সাধারণ নীতিতে রূপান্তর করা হয়, তখন তাকে বলা হয় স্বার্থের সমষ্টিকরণ।

বিভাগসমূহের মধ্যে সহযোগিতার সুদৃঢ়করণ

রাষ্ট্রপতিশাসিত শাসনব্যবস্থায় ক্ষমতাস্বতন্ত্রীকরণ নীতির প্রয়োগের ফলে শাসন বিভাগ, আইন বিভাগ প্রভৃতি পৃথক পৃথক অবস্থায় বিরাজ করে। এইসব বিভাগের মধ্যে ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল সহযোগিতার বন্ধন সৃষ্টি করে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে। সরকারের বিভিন্ন বিভাগের মধ্যে যদি বন্ধন সুদৃঢ় হয় তাহলে শাসনকার্য সুষ্ঠুভাবে চলতে পারে।

স্বার্থের গ্রন্থিকরণ

উদারনৈতিক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে নানা ধরনের শ্রেণি ও গোষ্ঠী তাদের নিজের স্বার্থের কারণে একে অপরের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে। এইসব পরস্পরবিরোধী স্বার্থগুলির প্রতিনিধিত্ব করে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও স্বার্থগোষ্ঠীসমূহ। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় রাজনৈতিক দল এই পরস্পরবিরোধী স্বার্থের মধ্যে সমন্বয় সাধন করে।

উপসংহার

রাজনৈতিক দলগুলি উদারনৈতিক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থায় এইসব কার্যাবলি সম্পাদনের মাধ্যমে গণতন্ত্রকে সঞ্জীবিত রাখে বলে অনেকে মনে করেন যে, রাজনৈতিক দল হল প্রকৃতপক্ষে 'গণতন্ত্রের প্রাণ'।

আপনার আসলেই দৈনিক শিক্ষা ব্লগর একজন মূল্যবান পাঠক। আধুনিক রাষ্ট্রে রাজনৈতিক দলের ভূমিকা ও কার্যাবলি আলোচনা করো এর আর্টিকেলটি সম্পন্ন পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ ধন্যবাদ। এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনার কেমন লেগেছে তা অবশ্যই আমাদের কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url