প্রাকৃতিক গ্যাসের বিশ্বব্যাপী উৎপাদন ও বণ্টনের বিবরণ দাও

আচ্ছালামু আলাইকুম প্রিয় দর্শক - দৈনিক শিক্ষা ব্লগর পক্ষ থেকে আপনাকে স্বাগতম। আজকে আমি আপনাদের মাঝে প্রাকৃতিক গ্যাসের বিশ্বব্যাপী উৎপাদন ও বণ্টনের বিবরণ দাও নিয়ে আলোচনা করব।

প্রাকৃতিক গ্যাসের বিশ্বব্যাপী উৎপাদন ও বণ্টনের বিবরণ দাও

ভূমিকা: ভূগর্ভ থেকে স্বাভাবিকভাবে যে গ্যাস নির্গত হয়, তাই প্রাকৃতিক গ্যাস। মিথেন, হাইড্রোজেন, সালফাইড ও কার্বন ডাই- অক্সাইড এ তিনটি গ্যাস মিশ্রিত অবস্থায় প্রাকৃতিক গ্যাস হিসেবে পাওয়া যায়। গ্যাস তেলের উপর ভাসমান অবস্থায় থাকে। তাই পৃথিবীর প্রায় অধিকাংশ তেলখনি হতে গ্যাস সংগৃহীত হয়ে থাকে। বর্তমানে রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বে শীর্ষস্থানীয় গ্যাস উৎপাদনকারী দেশ।

প্রাকৃতিক গ্যাসের বিশ্বব্যাপী উৎপাদন ও বণ্টনের বিবরণঃ পৃথিবীর সব দেশেই কমবেশি প্রাকৃতিক গ্যাস পাওয়া গেলেও তেলসমৃদ্ধ দেশেই প্রাকৃতিক গ্যাস বেশি পাওয়া যায়। ভূ-তত্ত্ববিদদের মতে, তেলক্ষেত্রের উপর প্রাকৃতিক গ্যাস ভাসমান অবস্থায় থাকে। বিশ্বে প্রায় ১,২৮,৮৫২ বিলিয়ন ঘনমিটার প্রাকৃতিক গ্যাস সঞ্চিত রয়েছে। তন্মধ্যে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন সঞ্চয়ের দিক দিয়ে শীর্ষস্থানে রয়েছে।

নিচে বিশ্বের প্রধান প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলনকারী দেশসমূহের বিবরণ দেয়া হলো-

  1. রুশ ফেডারেশন: প্রাকৃতিক গ্যাস উৎপাদনে রাশিয়া বিশ্বে প্রথম। ২০১০ সালে এদেশে ২ কোটি ১৯ লক্ষ ৫১ হাজার টেরাজলিস প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলিত হয়। রাশিয়ার প্রধান গ্যাসক্ষেত্রগুলো প্রধানত ইউরাল, উফা, বুখারা, বাকু, কামচাটকা প্রভৃতি অঞ্চলে অবস্থিত।
  2. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বে দ্বিতীয় বৃহত্তম প্রাকৃতিক গ্যাস উৎপাদনকারী দেশ। ২০১০ সালে এদেশে ২ কোটি ৩৪ লক্ষ ৩৯ হাজার টেরাজলিস প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলন করে। যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস, লুসিয়ানা, ওকলাহোমা, ক্যালিফোর্নিয়া প্রভৃতি রাজ্যে গ্যাসক্ষেত্রগুলো অবস্থিত।
  3. কানাডা: প্রাকৃতিক গ্যাস উৎপাদনে কানাডা বিশ্বে তৃতীয়। ২০১০ সালে এদেশে বিশ্বের ৫৫ লক্ষ ৬৫ হাজার টেরাজলিস প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলিত হয়। কানাডার প্রাকৃতিক গ্যাসের উৎপাদন ২০১০ অলবার্টা ও অন্টারিও প্রদেশে অধিকাংশ গ্যাসক্ষেত্র অবস্থিত।
  4. নরওয়ে: প্রাকৃতিক গ্যাস উৎপাদনে নরওয়ে বর্তমান বিশ্বে চতুর্থ। ২০১০ সালে এদেশ ৪৮.৫৮ লক্ষ টেরাজলিস প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলন করে।
  5. যুক্তরাজ্য: যুক্তরাজ্য বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম প্রাকৃতিক গ্যাস উৎপাদনকারী দেশ। ২০১০ সালে দেশ ২৩.৯১ লক্ষ টেরাজলিস প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলন করে।
  6. মেক্সিকো: মেক্সিকো বিশ্বের ষষ্ঠ প্রধান প্রাকৃতিক গ্যাস উৎপাদনকারী দেশ। ২০১০ সালে মেক্সিকোতে ৩২.০৪ লক্ষ টেরাজলিস প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলিত হয়। মেক্সিকোর প্রধান গ্যাসক্ষেত্রগুলো ডুইরিট-টারো, উইকাটান ও ওয়ানজুয়াটায় অবস্থিত।
  7. চীন: প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলনে চীন বর্তমানে বিশ্বে সপ্তম। ২০১০ সালে এদেশ ৩৬.৪২ লক্ষ টেরাজলিস প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলন করে। চীনের সিনজিয়াং প্রদেশের কামাই, লেভঙ্গু ও সাইডাম, কানসু প্রদেশের ইউমেন, সেচুয়ান প্রদেশের নানচং এবং সেনসি প্রদেশের ইয়াংচাং থেকে এ গ্যাস উত্তোলিত হয়।
  8. নেদারল্যান্ড: নেদারল্যান্ড বিশ্বের অষ্টম বৃহত্তম প্রাকৃতিক গ্যাস উৎপাদনকারী দেশ। ২০১০ সালে এদেশ ২৬.৩৪ লক্ষ টেরাজলিস প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলন করে। নেদারল্যান্ডের গ্রোনিনজেন প্রদেশ প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলনক্ষেত্র হিসেবে বিখ্যাত।
  9. ইন্দোনেশিয়া: প্রাকৃতিক গ্যাস উৎপাদনে ইন্দোনেশিয়া 'বিশ্বে নবম স্থান অধিকারী দেশ। ২০১০ সালে এদেশে ৩৫.৯৩ লক্ষ টেরাজলিস প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলিত হয়। ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা, জাভা, জাম্বি, বেলবন প্রভৃতি অঞ্চলে প্রচুর প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলিত হয়।
  10. ওশেনিয়া মহাদেশ: ওশেনিয়া মহাদেশের মধ্যে অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও পাপুয়া নিউগিনিতে প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলিত হয়। ২০১০ সালে অস্ট্রেলিয়ায় ১৬ লক্ষ ৪ হাজার এবং নিউজিল্যান্ডে ১ লক্ষ ৭০ হাজার টেরাজলিস গ্যাস উত্তোলিত হয়।
  11. অন্যান্য দেশ: উপরিউক্ত দেশগুলো ছাড়াও উজবেকিস্তান, রুমানিয়া, ইউক্রেন, বাংলাদেশ, মালয়েশিয়া, পাকিস্তান, বাহরাইন, জাপান, বলিভিয়া, নাইজেরিয়া, নিউজিল্যান্ড প্রভৃতি দেশে যথেষ্ট পরিমাণে প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলিত হয়।

উপসংহার: পরিশেষে বলা যায়, পৃথিবীর সব দেশেই কমবেশি প্রাকৃতিক গ্যাস আছে। কিন্তু আধুনিক প্রযুক্তি ও কারিগরি জ্ঞান এবং অর্থের অভাবে এ সম্পদ উত্তোলন করতে পারে না। তবে যেসব দেশ প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলনে সক্ষম হয়েছে, সেসব দেশ আজ উন্নতির চরম শিখরে অবস্থান করছে। পৃথিবীর তেল উৎপাদনকারী দেশগুলোতেই মজুদ সর্বাধিক পরিলক্ষিত হয়।

আরো পড়ুনঃ প্রাকৃতিক গ্যাসের ব্যবহার ও অর্থনৈতিক গুরুত্ব আলোচনা কর।

আপনার আসলেই দৈনিক শিক্ষা ব্লগর একজন মূল্যবান পাঠক। প্রাকৃতিক গ্যাসের বিশ্বব্যাপী উৎপাদন ও বণ্টনের বিবরণ দাও এর আর্টিকেলটি সম্পন্ন পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ ধন্যবাদ। এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনার কেমন লেগেছে তা অবশ্যই আমাদের কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url