বাণিজ্যিক ভূগোলের বিষয়বস্তু আলোচনা কর

আচ্ছালামু আলাইকুম প্রিয় দর্শক - দৈনিক শিক্ষা ব্লগর পক্ষ থেকে আপনাকে স্বাগতম। আজকে আমি আপনাদের মাঝে বাণিজ্যিক ভূগোলের বিষয়বস্তু আলোচনা কর নিয়ে আলোচনা করব।

বাণিজ্যিক ভূগোলের বিষয়বস্তু আলোচনা কর

ভূমিকা: বৃহত্তর ভূগোলের অন্যতম শাখা বাণিজ্যিক ভূগোল। মানুষের অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক কার্যাবলির বর্ণনা ও বিশ্লেষণ বাণিজ্যিক ভূগোলের প্রধান আলোচ্যবিষয়। শুধু ব্যবসায়-বাণিজ্যেই নয়, মানুষের সুষ্ঠু ও সুন্দর জীবনযাপনের জন্য বাণিজ্যিক ভূগোলের জ্ঞান অপরিহার্য।

বাণিজ্যিক ভূগোলের বিষয়বস্তু: মানুষ তার বস্তুগত ও অবস্তুগত দ্রব্যের চাহিদা পূরণের জন্য বিভিন্ন প্রকার অর্থনৈতিক কার্যাবলি সম্পাদন করে। মানুষের এসব কার্যাবলি কীভাবে প্রাকৃতিক ও অপ্রাকৃতিক পরিবেশ দ্বারা প্রভাবিত হয় তার কারণ অনুসন্ধান ও বর্ণনা করাই হলো বাণিজ্যিক ভূগোলের প্রধান আলোচ্য বিষয়। বাণিজ্যিক ভূগোলের বিষয়বস্তু নিম্নরূপঃ

  1. মানুষ ও তার উপজীবিকা: বাণিজ্যিক ভূগোলের অন্যতম প্রধান আলোচ্য বিষয় হলো মানুষ ও মানুষের চাহিদা ও উপজীবিকা। কারণ পরিবেশের তারতম্যের ফলে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষের চাহিদা ও উপজীবিকা বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে। বাণিজ্যিক ভূগোল পাঠের মাধ্যমে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলের বাসিন্দারা কীভাবে বিভিন্ন উপজীবিকার মাধ্যমে জীবনধারণ করে তা আমরা জানতে পারি।
  2. পরিবেশের বর্ণনা: পৃথিবীর প্রাকৃতিক ও অপ্রাকৃতিক পরিবেশের বর্ণনা এবং এসব পরিবেশ কীভাবে মানুষের অর্থনৈতিক কার্যাবলি প্রভাবিত করে তার আলোচনা বাণিজ্যিক ভূগোলের অন্যতম বিষয়বস্তু। মানুষ কীভাবে নিজের প্রয়োজনে প্রতিকূল পরিবেশকে আয়ত্তে এনে জীবনযাপন করছে তাও আমরা বাণিজ্যিক ভূগোল পাঠে জানতে পারি।
  3. আর্থিক সম্পদ ও তার ব্যবহার: বাণিজ্যিক ভূগোল পাঠে আমরা পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলের প্রাপ্ত বিভিন্ন প্রকার সম্পদ সম্বন্ধে জানতে পারি। এসব সম্পদের উৎপাদন কীভাবে হয় এদের উৎপাদন, বণ্টন ও ব্যবহার বাণিজ্যিক ভূগোল আলোচনা করে।
  4. উৎপাদনঃ পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলের বিভিন্ন প্রকার পণ্যদ্রব্যের উৎপাদন ও বণ্টন বাণিজ্যিক ভূগোল পাঠের মাধ্যমে আমরা জানতে পারি।
  5. বিভিন্ন যুগে অর্থনৈতিক অবস্থার চিত্র : বিভিন্ন যুগে মানুষের অর্থনৈতিক কার্যকলাপ পরিবেশ দ্বারা বিভিন্নভাবে প্রভাবিত হয়ে আসছে। তাই মানুষ যুগ পরম্পরায় পরিবেশ দ্বারা কীভাবে প্রভাবিত হচ্ছে এবং ভবিষ্যৎ কীরূপ হতে পারে তার ধারাবাহিক চিত্র প্রদান করাও বাণিজ্যিক ভূগোলের বিষয়বস্তু হিসেবে পরিণত হয়।
  6. উৎপাদনের উপাদানসমূহের বর্ণনা ও সমন্বয়: উৎপাদনের উপাদানসমূহ কোনো বিশেষ স্থানে কেন্দ্রীভূত নয়। পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে থাকা উপাদানসমূহ সংগ্রহ ও সমন্বয় সাধন করা বাণিজ্যিক ভূগোলের আলোচ্য বিষয়।
  7. ব্যবসা-বাণিজ্য: বাণিজ্যিক ভূগোল পাঠের মাধ্যমে পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলের মধ্যে বিভিন্ন প্রকার দ্রব্যসামগ্রীর যে ব্যবসা-বাণিজ্য হয় তার তথ্যাদি আমরা জানতে পারি।
  8. অর্থনৈতিক অবস্থায় তারতম্যের কারণ: বাণিজ্যিক ভূগোল পাঠের মাধ্যমে আমরা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অধিবাসীদের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও অবস্থার তারতম্য জানতে পারি।
  9. পরিবহন ও যোগাযোগ ব্যবস্থাঃ পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলের সাথে যোগযোগ স্থাপন, মানুষের চলাচল, পণ্যাদির পরিবহনের জন্য জল, স্থল ও বিমান পথের ব্যবহার এবং বিভিন্ন দেশের পরিবহনের উন্নত ও অনুন্নত অবস্থা বাণিজ্যিক ভূগোল পাঠের মাধ্যমে জানা যায়।
  10. অর্থনৈতিক উন্নয়নের তারতম্যের বিশ্লেষণ: বাণিজ্যিক ভূগোল পাঠের মাধ্যমে কোন দেশের বা অঞ্চলের অতীত ও বর্তমান, এছাড়াও পৃথিবীর কোন দেশ উন্নয়নের কোন স্তরে আছে তার তুলনামূলক চিত্র পাওয়া যায়।

উপসংহারঃ পরিশেষে বলা যায় যে, মানুষের অর্থনৈতিক ক্রিয়াকলাপের সাথে পার্থিব পরিবেশের এবং পার্থিব পরিবেশের সাথে মানুষের অর্থনৈতিক ক্রিয়াকলাপের সম্পর্ক রয়েছে। এ উভয়বিদ ও পারস্পরিক সম্পর্ক পর্যালোচনা করাই বাণিজ্যিক ভূগোলের বিষয়বস্তু।

আপনার আসলেই দৈনিক শিক্ষা ব্লগর একজন মূল্যবান পাঠক। বাণিজ্যিক ভূগোলের বিষয়বস্তু আলোচনা কর এর আর্টিকেলটি সম্পন্ন পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ ধন্যবাদ। এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনার কেমন লেগেছে তা অবশ্যই আমাদের কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url